Loading...
www.kazirhut.com

Welcome to Popular Bangla Community Forum : Kazirhut

Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and Be a part of Popular Bangla Forum.

Join the chitchat!
  1. Enjoying reading any topic? why not join in, post a reply! Register/login Today! PleaseClick Here ....
  2. কাজীরহাট এর স্পেশাল অফার : যেকোন সফটওয়্যারের ফুল ভার্সনের জন্যএখানে রিকোয়েস্ট করুন

Islamic কুনুতে নাজেলা কি ও কেন? বিস্তারিত।

Discussion in 'Role Of Islam' started by Zahir, May 14, 2013.

  1. Zahir
    Offline

    Zahir Kazirhut Elite Member Staff Member Global Moderator Admin

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    14,591
    Likes Received:
    4,498
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    353
    কুনুতে নাজেলা কি? কেন পড়তে হয়? কখন পড়তে হয়?

    কুনুত দুই ধরনের রয়েছে। একটি হলো সবসময় নামাযের অযিফা হিসাবে পড়া, যাকে কুনুতে রাতেবা বলা হয়। আর অপর হলো কখনো কখনো প্রচন্ড বিপদ মহামাড়ি ও ব্যপক দুর্যোগকালে নামাযে একধরনের কুনুত পড়া, যাকে কুনুতে নাজেলা বলা হয়। এই দু ধরনের কুনুতের ব্যাপারে ইমামদের মতবিরোধ রয়েছে।
    ইমাম শাফেয়ী (রহঃ) বলেন, স্বাভাবিক অবস্থায় সব সময় নামাযের অযিফা হিসাবে ফজরের নামাজে আর রমজান মাসের শেষ অর্ধেকে বিতির নামাজে কুনুতে রাতেবা পড়া হবে। আর প্রচন্ড দুর্যোগ কালে পাঁচ ওয়াক্ত নামাযে কুনুতে নাজেলা পড়া হবে। আবার দুর্যোগ শেষ হয়ে গেলে তা বর্জন করে দিবে।
    পক্ষান্তরে হানাফী মাযহাবের উলামায়ে কিরাম বলেন, নামাজের অযিফা হিসাবে শুধু বিতির নামাজে বৎসরের সব সময়-ই কুনুতে রাতেবা পড়বে। অন্য কোন নামাজে নয়। আর প্রচন্ড দুর্যোগকালে শুধু ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা পড়বে অন্য কোন নামাজে নয়।
    ইমাম শাফেয়ী (রহঃ) এর বক্তব্য দেখুন তাঁরই রচিত কিতাব কিতাবুল উম্ম -এ :…
    قال الشافعي رحـ حكي عدد صلاة النبي صـ فما علمت احدا منهم حكي أنه قنت فيها الا أن تكون دخلت في جملة قنوته في الصلوات كلهن حين قنت علي قتلة اهل شر معنونة و لا قنوت في شيئ من الصلوات الا الصبح الا أن تنزل نازلة فيقنت في الصلوات كلهن إن شاء الامام – كتاب الام (১/২০৫)
    অর্থাৎ ফজরের নামাজে সব সময় কুনুত পড়বে আর দুুর্যোগ হলে সব নামাযে কুনুত পড়বে। -কিতাবুল উম্ম (১/২০৫)
    আর আমাদের মাযহাবে যে ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা পড়ার অনুমোদন রয়েছে তার প্রমাণ হলো হানাফী মাযহাবের কিতাবগুলোর বর্ণনা। তা হচ্ছে :
    ১. আল্লামা মোল্লা কারী (রহঃ) মিশকাত শরীফের ব্যাখ্যা গ্রন্থ মিরকাতে লিখেন: اذا طبق علمائنا علي جواز القنوت عند النازلة অর্থাৎ, আমাদের (হানাফী) উলামায়ে কিরাম এ ব্যাপারে ঐক্যমত পোষণ করেছেন যে, প্রচন্ড বিপদের সময় কুনুতে নাজেলা পড়া জায়িয। (মিরকাত ৩/১৭৮)
    ২. ফাতওয়ায়ে শামী গ্রন্থে উল্লেখ রয়েছে:
    و إن نزل بالمسلمين نازلة قنت في صلاة الجهر و هو قول الثوري و احمد… في الاشباه من الغاية قنت في صلاة الفجر- و يؤيده ما في شرح المينة حيث قال بعد كلام فتكون شرعيته اي شرعية القنوت في النوازل مستمرة و هو محمل قنوت من قنت من الصحابة بعد وفاته عليه الصلاة و السلام و هو مذهبنا و عليه الجمهور- و قال الحافظ ابو جعفر الطحاوي انما لا يقنت عندنا في صلاة الفجرمن غير بلية فان وقعت فتنة او بلية فلا بأس به فعله رسول الله صـ و اما القنوت في الصلوات كلها للنوازل فلم يقل به احد الا الشافعي – // رد المختار (২/৪৪৮-৪৪৯)
    ফাতওয়ায়ে শামীর উল্লিখিত বক্তব্যের সারকথা হল , হানাফী মাযহাবে প্রচন্ড ও ব্যাপক বিপদ ও দুর্যোগ কালে ফজরের নামাজে কুনুতে নাজেলা পড়ার অনুমোদন রয়েছে। তাই তো অনেক সাহাবী থেকে পড়ার বর্ণনা পাওয়া যায়। ইমাম তাহাবী (রহঃ)-ও এই মত পোষণ করেছেন। – ফাতওয়ায়ে শামী (২/৪৪৮-৪৪৯)
    ৩. বুখারী শরীফের ব্যাখ্যা গ্রন্থ লামেউদ্ দারারীতে উল্লেখ আছে:
    في حاشية اللامع: و اما الثاني في اختلافهم في قنوت غير الوتر فعلم مما سبق انه مشروع عند الشافعية و المالكية في الفجر خاصة في جميع السنة و قنوت الفجر عند النازلة عند الحنفية و الحنابلة ..الخ (২/৫২)
    و في اللامع: القنوت في الفجر في النازلة و لا حاجة الي القول بنسخه بل هو معمول عند النازلة فلا ينافي مذهبنا لورود شيئ من الروايات انه صلي الله عليه و سلم دام علي قنوت الفجر و تعد الركوع الي اخر ايام حياته لانا نقول كذالك اذا نزلب بالمسلمين نازلة… فمن اطلق النسخ و هو دوام الاستمرار في كل يوم بدون تخصيص بالنازلة – اللامع مع حاشيته (২/৫৩)
    আলোচ্য ইবারতে বলা হয়েছে যে, হানাফী মাযহাব ও হাম্বলী মাযহাবে ব্যাপক ও প্রচন্ড দুর্যোগ কালেই ফজরের নামাযে কুনুতে নাজেলা পড়ার অনুমতি রয়েছে। অন্য নামাজে নয়। আর ইমাম শাফেয়ী ও ইমাম মালেক (রহঃ) এর মতে সব সময়-ই ফজরের নামাজে কুনুত পড়া যবে।
    *প্রচন্ড দুর্যোগ কালে কুনুতে নাজেলা পড়ার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে আমাদের মাযহাবে। সুতরাং এটা রহিত হয়ে যাওয়ার কওল যথাযথ নয়। * যারা রহি হওয়ার কথা বলেছেন, তার দ্বারা উদ্দেশ্য হল দুর্যোগ ব্যতীত স্বাভাবিক অবস্থায় ফজরের নামাযে কুনুত পড়া রহিত হওয়া।
    ৪. আবু দাউদ শরীফের ব্যাখ্যা গ্রন্থ বাজলুল মাজহুদে রয়েছে :
    و هو صريح في ان قنوت النازلة عندنا بصلوة الفجر دون غيرها من الصلوات الجهرنة او السرية و مقاده ان قومهم بان القنوت في الفجر منسوخ معناه نسخ عموم الحكم لا نسخ اصله كما نته عليه نوح الندي قوله في الكل ان هذا لم يقل به الا الشافعي و عزاه في البحر الي جمهور اهل الحديث فكان ينبغي عزوه اليهم لئلا يوهم انه قول في المذهب انتهي – و قال الطحطاوي في حاشية الدر المختار بعد نقل كلام صاحب البحر و الذي يظهر لي ان قوله في البحر و ان نزل بالمسلمين نازلة قنت الامام في صلوة الجهر تحريف من النساخ و صوابه الفجر – (بذل المجهود – ২/৩৩৪)
    ৫. মুয়াত্তায়ে মুহাম্মদের হাশিয়ায়ে উল্লেখ রয়েছে :
    لا نزاع بين الائمة في مشروعية القنوت ولا في مشروعية النازلة انما النزاع في بقاء مشروعيته لغير النازلة – (تعليق المحمجد علي موطأ محمد صـ ১৪৫)
    অর্থাৎ, দুর্যোগ কালে কুনুতে নাজেলা পড়া যাবে, এই ব্যাপারে ইমামদের কোন মতবিরোধ নেই। মতবিরোধ হল দুর্যোগ ছাড়াও (ফজরে) পড়া যাবে কি না – তাতে।
    অনুরূপ আলোচনা রয়েছে তিরমিযী শরীফের ব্যাখ্যা গ্রন্থ মাআরেফুস সুনান – (২/১৭-১৮) – নাসবুর রায়া (২/১৩৩) , আল ফিকহুল হানাফী ফি সাওবিহিল জাদীল – (১/২৯৬) -মারাকিউল ফালাহ (পৃ: ২০৬-২০৭)। এমনি ভাবে ফাতহুল কাদীরে রয়েছে:
    إن القنوت للنازلة مستمرة لم ينسخ و به قال جماعة من اهل الحديث و حملوا عليه حديث ابي جعفر عن انس ما زال يقنت حتي فارق الدنا اي عند النوازل و ما ذكرنا من حديث ابي مالك و ابي هريرة و انس و باقي اخبار الصحابة لا يعارضه بل انما تفيد نفي سنيته راتبا في الفجر سوي حديث ابي حمزة حيث قال لم يقنت قبله ولا بعده و كذا حديث ابي حنيفة فيحب كون بقاء القنوت في النوازل مجتهد او ذالك ان هذا الحديث لم يؤثر عنه من قوله ان لا قنوت في ৎنازلة بعده هذه بل لمجرد العدم بعدها يستدعي القنوت فتكون شرعيته مستمرة و هو محمل قنوت من قنت من الصحابة بعد وفاته صـ و بان يظن رفع الشرعية نظرا الي سبب تركه صـ هو انه لما نزل قوله تعالي- ليس لك من الامر شيئ – ترك – و الله سبحانه اعلم – (فتح القدير ১/৩৭৯)
    অনুরূপভাবে এলাউস সুনানে রয়েছে:
    ان قنوت النوازل لم ينسخ بل هو مشروع اذا نزل بالمسلمين نازلة ان يقنت الامام في الفجر –
    অর্থাৎ, কুনুতে নাজেলা রহিত হয়নি বরং তা এখনো বহাল রয়েছে। মুসলমানদের দুর্যোগ কালে ফজরের নামাজে ইমাম কুনুত পড়বে। (এলাউস সুনান – ৬/৮১)
    মুগনী নামক গ্রন্থেও এমন বক্তব্য রয়েছে :
    قال الأثرم : سمعت ابا عبد الله سئل عن القنوت في الفجر فقال – اذا نزل بالمسلمين نازلة قنت الامام و امن من خلفه ثم قال مثل ما نزل بالمسلمين من هذا الكافر يعني بابك – قال ابو داود سمعت احمد يسأل عن القنوت في الفجر فقال : لو قنت اياما معلومة ثم يترك كما فعل النبي صـ او قنت علي الجرمية او قنت علي الدوام و الجرمية هم اصحاب بابك – و بهذا قال ابو حنيفة و الثوري – ذالك لما ذكرنا من ان النبي صـ قنت شهرا يدعو علي حي من احياء العرب ثم تركه … الخ – (المغني لابن قدامة ১/৮২৩-৮২৪)
    [fbpop][/fbpop]
    • Informative Informative x 2
  2. Zahir
    Offline

    Zahir Kazirhut Elite Member Staff Member Global Moderator Admin

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    14,591
    Likes Received:
    4,498
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    353
    এ সব কিতাবের আলোচনা দ্বারা এ কথা সুস্পষ্ট হল যে, হানাফী মাযহাবে মুসলমানদের প্রচন্ড ব্যাপক দুর্যোগ কালে কুনুতে নাজেলা পড়ার অনুমতি রয়েছে। বাকী কোন কোন কিতাবের আলোচনা দ্বারা ভুল বুঝে যার বলেন হানাফী মাযহাবে কুনুতে নাজেলা নেই তাদের উত্তর হল :
    ১) বুখারী শরীফের ১ম খন্ড – ১১০ পৃষ্ঠার হাশিয়ায় দুর্যোগ কালে কুনুতে নাজেলা পড়া যাবে না এই কথা বলা হয়নি। বরং সেখানে বলা হয়েছে ফজরের নামাযে সব সময় কুনুতে রাতেবা পড়ার কথা। অর্থাৎ ফজরের নামাজে সব সময় কুনুত পড়ার ব্যাপারে ইমাম আবু হানিফা (রহঃ) বলেন, ফজরের নামাজে কুনুত নেই। তাই তো হাশিয়া লেখক ঐ জায়গায়ই আবু জাফর (রহঃ) এর সুত্রে আনাস (রাঃ) এর বর্ণীত হাদীস -“রাসূল (সঃ) দুনিয়া থেকে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত ফজরের নামাজে কুনুত পড়েছেন” এর ব্যাখ্যায় এই কথাও বলেছেন যে এই হাদীসে কুনুতের দ্বরা উদ্দেশ্য হল কুনুতে নাজেলা। অর্থাৎ, বিপদের সময় কুনুত পড়ার বিষয়টি অনুমোদিত ছিল রাসূল (সঃ) এর মৃত্যু পর্যন্ত। যদি আবু হানিফঅ (রহঃ) সব ধরনের কুনুত কে নফী (নিষেধ) করে থাকতেন, তাহলে হাশিয়া লেখক আবু হানিফা (রহঃ) এর কওল উল্লেখ করার পর উক্ত হাদীসের এই ব্যাখ্যা উল্লেখ করতেন না। তা ছাড়া তিনি ইমাম শাফেয়ী (রহঃ) এর কওল -সব সময়ই ফজরের নামাজে কুনুত পড়া হবে- এর বিপরীতে আবু হানিফা (রহঃ) এর কওল “لا قنوت في الفجر” অর্থাৎ, ফজরে কোন কুনুত নাই – এর আলোচনা দ্বারা এই কথাই সুস্পষ্ট হয় যে এখানে ফজরের নামাজে কুনুতে রাতেবাকে নফী করা হয়েছে। নাজেলাকে নফী করা হয়নি। সুতরাং বুখারী শরীফের হাশিয়ার আলোচনা দ্বারা এই কথা বলা ঠিক নয় যে ইমাম আবু হানিফা (রহঃ) এর মতে কুনুতে নাজেলা অবৈধ।
    ২) বুখারী শরীফের ২য় খন্ড ৬৫৫ পৃষ্ঠার হাদীস দ্বারা কুনুতে নাজেলা রহিত হয়ে গেছে এই কথা বলা যথাযথ নয়। বরং বুখারী শরীফের ২য় খন্ড ৬৫৫ পৃষ্ঠার হাদীস হল:
    عي ابي هريرة ان رسول الله صـ كان اذا اراد ان يدعو علي احد او يدعو لاحد قنت بعد الركوع فربما قال اذا قال سمع الله لمن حمده اللهم ربنا لك الحمد اثج الوليد بن الوليد و سلمة بن هشام و عياش بن ربيعة اللهم اشدد وطاتك علي مضر و اجعلها مسنينس كسني يوسف يجهر بذالك و كان يقول في بعض صلوته في صلوة الفجر اللهم العن فلانا فلانا لاخياء من العرب حتي انزل الله ليس لك من الامر شيئ – (رواه البخاري ২/৬৫৫)
    অর্থাৎ, ليس لك من الامر شيئ -আয়াত অবতীর্ণ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত রাসূল (সঃ) নামাজে কুনুত পড়েছেন। এমনি ভাবে তাহাবী শরীফে হযরত আনাস (রাঃ) এর থেকে বর্ণীত হাদীস :
    عن انس رضـ قال قنت رسول الله صـ شهراً بعد الركوع يدعو علي حي من احياء العرب ثم تركه – (شرح معاني الاثار- ১/১৭৪)
    অর্থাৎ, রাসূল (সঃ) এক মাস কুনুত পড়ে পরবর্তীতে ছেড়ে দিয়েছেন। এমনি ভাবে মুসলিম শরীফের হাদীস :
    حدثنا محمد بن المثني قالنا عبد الرحمن قالنا هشام عن قتادة قن انس رضـ ان رسول الله صـ قنت شهراً يدعو علي حي من احياء العرب ثم تركه – (مسلم – ১/২৩৭)
    অর্থাৎ, রাসূল (সঃ) আরবের কোন সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে একমাস কুনুত পড়ে ছেড়ে দিয়েছেন। এই সব হাদীস দ্বারা দুর্যোগ কালে ফজরের নামাজে কুনুতে নাজেলা পড়া রহিত হয়ে গেছে এই কথা প্রমাণিত হয় না। বরং এ সব বর্ণনার ব্যাখ্যায় মুহাদ্দিসীনে কিরাম বলেন -
    -> রাসূল (সঃ) এক মাস পড়ে ছেড়ে দিয়েছেন সমস্যা সমাধান হয়ে যাওয়ার কারণে, রহিত হয়ে যাওয়ার কারণে নয়। তাই তো কোন কোন বর্ণনায় এসেছে যে,
    في المسلم – حدثنا خحمد تي مهر ان .. عي ابي سلمة ان ابا هريرة حدثهم ان النبي صـ قنت شهراً بعد الركعة في صلوةٍ شهراً .. قال ابو هريرة ثم رأيت رسول الله صـ ترك الدعاء بعد فقلت اري رسول الله صـ قد ترك الدعاء لهم فقيل و ما تراهم قد قدموا – (رواه مسلم ১/২৩৭)
    অর্থাৎ, আবু হুরায়রা (রাঃ) বর্ণনা করেন যে, রাসুল (সঃ) একমাস নামাজে কুনুত পড়ার পর একদিন কুনুত পড়া ছেড়ে দেয়ার বিয়ষ জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, তুমি কি দেখনি যে, যাদের জন্য দুআ করেছিলাম তারা মুক্তি পেয়ে চলে এসেছে ? (মুসলিম, আবু দাউদ) অর্থাৎ, মক্কায় কুরাইশদের হাতে কিছু মুসলমান বন্দি হয়ে গেলে রাসূল (সঃ) তাদের জন্য কুনুত পড়েন। অতপর তার মুক্তি পেলে কুনুত পড়া বন্ধ করে দেয়া হয়। সুতরাং এর দ্বারা একথা সুস্পষ্ট যে, সমস্যা সমাধান হয়ে যাওয়ার কারণে রাসূল (সঃ) কুনুত পড়া ছেড়ে দিয়েছেন। আর মুসলিম, তাহাবী ও বুখারী শরীফের ২য় খন্ডের ৬৫৫ পৃ: এর হাদীরে এই ছেড়ে দেয়ার কথাটাই বলা হয়েছে।
    -> আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম (রহঃ)-ও রাসূল (সঃ) এর কুনুত পড়া ছেড়ে দেয়ার বিষয়টির অনুরূপ ব্যাখ্যা দিয়েছেন – তিনি বলেন:
    و انما قنت عند النوازل للدعاء علي آخرين ثم تركه لما قدم من دعا لهم و تخلصوا من الاسرار و اسلم من دعا عليهم و جائوا تابئيس فكان قنوته لعارض فلما زال ترك القنوت – (فتح الملهم – ২/২৩৬)
    অতএব উক্ত বর্ণনা দ্বারা এ কথার উপর দলীল পেশ করা যবে না যে কুনুতে নাজেলা পড়া রহিত হয়ে গেছে।
    ৩) সুরায়ে আলে ইমরান (৪র্থ পারা) এর ১২৮ নং আয়াত-“ ليس لك من الامر شيئ او يتوب عليهم الخ” এর শানে নুজুলের ব্যাপারে দীর্ঘ আলোচনা রয়েছে। এই আয়াত দ্বারা ব্যাপক ভাবে কুনুতে নাজেলা রহিত হয়ে গেছে তার কোন প্রমাণ নেই। বরং রাসূল (সঃ) কাফেরদের নাম উল্লেখ করে যখন বদ দুআ করতেছিলেন আর তাদের মধ্যে এমন কিছু লোকের নাম ও বলে ফেলেছিলেন, পরবর্তীতে যাদের ঈমান আনার বিষয়টা আল্লাহ তা’আলার ইলমে ছিল। তাই আল্লাহ তায়ালা এই আয়াতে এই ভাবে নাম দিয়ে বদ দুআ করতে নিষেধ করেছেন। বুখারী শরীফের বর্ণনায় আসছে, তিনি (সঃ) সাকওয়ান ইবনে উমাইয়া, সুহাইল ইবনে আমর, হারেস ইবনে হিশাম এর নাম নিয়ে বদ দুআ করেছিলেন। অথচ পরর্বীতে তাঁরা তিনজন মুসলমান হয়েছেন। দেখুন কোফায়াতুল মুফতী (৩/৩৯৪)। তাই এর পর রাসূল (সঃ) কোন কাফেরের নাম নিয়ে বদ দুআ করেননি। তা ছাড়া ব্যাপক ভাবে কাফের-মুশরিক-জালিমদের বিরুদ্ধে বদ দুআ করা নিষেধ নয়। কুরআনুল কারীমেও এই ভাবেই বদদুআকে লা’নত এর কথা রয়েছে।
    আমরা বলি এই আয়াত দ্বারা কুনুতে নাজেলা রহিত হয়নি, কিন্তু ইমাম কুরতুবী (রহঃ) আরো আগে বেড়ে বলেন এই আয়াত দ্বারা ফজরে কুনুতে রাতেবাও রহিত হয়নি (আমরা অবশ্য তার এ কথার অন্য উত্তর দেই)। তাই তিনি বলেন,
    الثانية – زعم بعض الكوفيين ان هذه الاية ناسخة للقنوت الذي كان النبي صـ يفعله بعد الركوع الاخيرة من الصبح و احتج بحديث ابن عمر أنه سمع النبي صـ يقول في صلاة الفجر بعد رعغ رأسه من الركوع فقال اللهم ربنا و لك الحمد في الاخرة – ثم قال – اللهم العن فلانا و فلانا فانزل الله عز و جل – ليس لك من الامر شيئ او يتوب عليهم او يعذبهم – الاية و اخرجه البخاري- و اخرجه مسلم ايضاً من حديث ابي هريرة اُتم منه – و ليس هذا موضع نسخ و انما نية الله تعالي نبيه علي أن الامر ليس اليه- و انه لا يعلم من الغيب شيئا الا ما اعلمه – الخ – (قرطبي ৪/২০০)
    • Informative Informative x 2
  3. Zahir
    Offline

    Zahir Kazirhut Elite Member Staff Member Global Moderator Admin

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    14,591
    Likes Received:
    4,498
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    353
    সুতরাং উক্ত আয়াত দ্বারা কুনুতে নাজেলা রহিত হয়ে গেছে এই কথা বলা যথাযথ নয়। তারপরও এই আয়াত দ্বার নিষেধ ক্ষীণ হওয়ার সম্ভাবনাকেও যদি আমরা মেনে নেই তারপরও অকাট্যভাবে এর দ্বারা প্রমাণ পেশ করা যাবে না। কেননা নিয়ম রয়েছে, اذا جاء الاحتمال بطل الاستدلال -অর্থাৎ, একাধিক অর্থের সম্ভাবনাময় কথার দ্বারা এ অর্থের উপর অকাট্য ভাবে দলীল পেশ করা যায় না। তাই তো আল্লামা ইবনুল হুমাম (রহঃ) বলেন:
    فيجب كون بقاء القنوت في النوازل مجتهداً و ذالك هذا الحديث لم يؤثر عنه صـ من قوله ان لا قنوت في نازلة بعد هذه بل مجرد العدم بعدها فيتجه الاجتهاد بان يظن ان ذالك انما هو لعدم وقوع نازلة بعدها يستدعي القنوت فتكون شرعيته مستمرة – الخ –( فتح القدير১/৩৭৯)
    অর্থাৎ, প্রচন্ড দুর্যোগ কালে কুনুতে নাজেলা পড়ার হুকুম বাকী রয়েছে। রাসূল (সঃ) পরবর্তীতে পড়েন নাই, হতে পারে পরবর্তীতে তাঁর (সঃ) জীবদ্দশায় এমন কোন ঘটনা ঘটে নাই যার কারণে কুনুতে নাজেলার দরকার হয়। আবার রহিত হয়ে গেছে বিধায় পড়েন নাই এরও ক্ষীণ সম্ভাবনা রয়েছে। (ফাতহুল কাদীর -১/৩৭৯)
    রাসূল (সঃ) তাঁর জীবদ্দশায় পরবর্তীতে না পড়ার যে দুইটি সম্ভাবনাময় কারণের দিকে ইঙ্গিত করেছেন, তার মাঝে প্রথম কারণটিই বেশী যুক্তি যুক্ত। কেননা যদি রহিত হওয়ার মতটিই বেশী গ্রহণযোগ্য হয়, তাহলে রাসুল (সঃ) এর ইন্তিকালের পর হযরত আবু বকর (রাঃ) মুসায়লামা – ভন্ড নবীর – সাথে যুদ্ধ কালে হযরত উমর (রাঃ), হযরত আলী (রাঃ) মুআবিয়ার বিরুদ্ধে এবং …. (অস্পষ্ট) ….
    হযরত মুয়াবিয়া (রাঃ) হযরত আলীর বিরুদ্ধে কুনুত পড়লেন কি ভাবে .. অথচ তাদের থেকে এমন পড়ার প্রমাণ রয়েছে। যেমন ফাতহুল কাদীরে রয়েছে:
    و قد روي عن الصديق رضـ انه قنت عند محاربة مسيلمة و عند محاربة اهل الكتاب و كذالك قنت عمر و كذالك قنت علي في محاربة معاوية و معاوية في محاربة علي – الخ- و هو محمل من قنت من الصحابة بعد و فاته – (فتح القدير -১/৩৭৯)
    এমনি ভাবে এলাউস সুনানের (৬/৮৮) পৃ: ও এই বর্ণনা রয়েছে। তবে আবু মালেক আশযায়ীর বর্ণনার দ্বারা আমাদের আলোচ্য বিষয়কে প্রত্যাখ্যান করা যাবে না, কেননা তাঁর বর্ণনায় রাসূল (সঃ), আবু বকর (রাঃ), উমর (রাঃ), উসমান (রাঃ) ও আলী (রাঃ) কুনুত না পড়ার যেই কথা বলা হয়েছে তার দ্বারা উদ্দেশ্য হল ফজরের নামাজে সব সময় নামাজের অযিফা স্বরূপ কুনুত না পড়ার বিষয়। এখানে কুনতে নাজেলাকে নিষেধ করা হয়নি। তার বর্ণনাটি হল:
    عن زيد بن هارون قال انا ابو مالك الاشجعي سعد بن طارق قال قلت لابي يا ابت انك قد صليت خلف رسول الله صـ و خلف ابي بكر و خلف عمر و خلف عثمان و خلف علي ههنا بالكوفة قريبا من خمس سنين ا فكانوا يقتنون في الفجر؟ فقال أي بني محدثُ – (شرح معاني الآثار -১/১৭৭) و هكذا في اعلاء السنن (২/৮৩)
    অর্থাৎ, আবু মালেক আশযায়ী (রহঃ) বলেন, আমি আমার পিতাকে জিজ্ঞাসা করলাম, আপনি তো রাসূল (সঃ), আবুবকর (রাঃ), উমর, উসমান এবং আলী (রাঃ) এর পিছনে নামাজ পড়েছেন প্রায় পয়ষট্টি বৎসর। তারা কি ফজরের নামাজে কুনুত পড়েছেন? তখন তিনি উত্তরে বললেন – হে বৎস! এ তো নব আবিষ্কৃত।
    আলোচ্য এই হাদীসকে যদি আমরা কুনুতে নাজেলা না পড়ার ব্যাপারে ধরে নেই তাহলে বুখারীর বর্ণনায় যে রাসূল (সঃ) একমাস ফজরে কুনত পড়েছেন, তাও তো নফী হয়ে যায়। তার উত্তর কি হবে? এমনি ভাবে ইতিপূর্বে উল্লিখিত বর্ণনায় আবু বকর (রাঃ) ও অন্যান্য সাহাবায়ে কিরাম কুনুত পড়েছেন তার উত্তর কি হবে? এমনি ভাবে শায়বী (রহঃ) এর বর্ণনার কি উত্তর হবে যে, হযরত আলী (রাঃ) ফজরের নামাজে কুনুত পড়লে লোকেরা অপছন্দ করলে তিনি বলেন এটা আমার দুশমনদের বিরুদ্ধে সাহায্য কামানার উদ্দেশ্যে পড়ছি,
    عن الشافعي قال لما قنت علي في صلوة الصبح انكر الناس ذالك فقال انما استنصرنا علي عدونا – اخرجه ابن ابي شيبه و سنده صحيح – ( اعلاء السنن -২/৮২ – فتح الملهم – ২/২৩৫)
    (এই বর্ণনার দ্বারা দুটি বক্তব্য প্রমাণিত হয়.. এক হল ফজরের নামাজে কুনুতে রাতেবা নেই। যদি থাকত তাহলে অন্যান্য লোকেরা অপছন্দ করলেন কেন ?!! আর দ্বিতীয় বিষয় হল ফজরের নামাজে কুনুতে নাজেলা পড়া যাবে। যদি পড়া ঠিক না হত তাহলে আলী (রাঃ) পড়লেন কেন – বা পড়ার পর ভুল স্বীকার না করে এই উত্তর দিলেন কেন ??)
    অতএব এ তো প্রমাণিত হল যে, যেখানে কুনুত পড়ার কথা আছে তার দ্বারা উদ্দেশ্য হল কুনুতে নাজেলা পড়া, আর যেখানে না পড়ার কথা আছে তার দ্বারা উদ্দেশ্য হল নিয়মিত ফজরের নামাজে অযিফা হিসাবে পড়া।
    এই ভাবে সমন্বয় সাধন করেছেন ইমাম তাহাবী (রহঃ) ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে কুনুত পড়া ও না পড়ার বিষয় দুটির মাঝে। অর্থাৎ ইবনে আব্বাস (রাঃ) এর ছাত্র আবু রেজা বলেন, আমি ইবনে আব্বাস (রাঃ) ফজরের নামাজ পড়েছি আর তিনি রুকুর পূর্বে কুনুত পড়েছেন।
    عن عوف عن ابي رجاء عن ابن عباس رضـ قال صليت معه الفجر و قنت قبل الركعة – ( شرح المعاني – ১/১৭৯ – اعلاء السنن – ৬/৮৬ )
    আর ইবনে আব্বাস (রাঃ) এর আরেক ছাত্র সাঈদ ইবনে জুবায়ের বলেন ইবনে আব্বাস (রাঃ) ফজরের কুনুত পড়তেন না।
    عن منصور قال ثنا مجاهد او سعيد بن جبير ان ابن عباس كان لا يقنت في صلوة الفجر – شرح معاني الآثار (১/১৭৯) و عن عمران بن الحارث السلمي قال صليت خلف ابن عباس في داره الصبح فلم يقنت قبل الركوع و لا بعده – ( شرح معاني الآثار ১/১৭৯) -
    বিপরীতধর্মী এই দুই বর্ণনার সমাধানে ইমাম তাহাবী (রহঃ) বলেন, আবু রেজা ইবনে আব্বাসের কুনুত পড়ার ব্যাপারে যা বলেছেন তখন তিনি বসরায় আলী (রাঃ) এর গভর্ণর ছিলেন। আর সাঈদ ইবনে অজুবায়ের ও ইমরান ইবেন হারেস সুলামী সহ অন্যান্য ছাত্রগণ কুনুত না পড়ার যেই বর্ণনা দিয়েছেন তা বসরার ঘটনার পর মক্কায় অবস্থান কালের কথা। যখন পড়েছেন তখন সমস্যার কারণে পড়েছেন আর সমস্যা দূর হয়ে যাওয়ার কারণে পড়েন নাই। সুতরাং দুই বর্ণনায় কোন বৈপরিত্ত নেই।
    قال ابو جعفر فكان الذي يروي عنه القنوت هو ابو رجاء و انما كان ذالك و هو بالبصرة و اليا عليها لعلي رضـ و كان احد من يروي عنه بخلاف ذالك سعيد بن جبير و انما كانت صلوته معه بعد ذالك بمكة فكان مذهبه في ذالك ايضا مذهب عمر و علي رضـ – فكان ذالك الذي روينا عنهم القنوت في الفجرانما كان ذالك منهم للعارض الذي ذكرنا فقنتوا فيها و في غيرها من الصلوات و تركوا ذالك في حال عدم ذالك العارض – شرح معاني الآثار- (১/১৭৯) و هكذا في اعلاء السنن – فكان مذهبه في ذالك ايضاً مذهب عمر و علي – يعني انه كان يقنت عند النازلة و يتركه في غيرها فلا تعارض – اعلاء السنن(৬/৮৬)-
    অর্থাৎ, বিপদ ও দুর্যোগ কালে ইবনে আব্বাস (রাঃ), উমর (রাঃ) এবং আলী (রাঃ) কুনুত পড়তেন এবং এটাই তাদের রায় ছিল।
    বাকী ইমাম তাহাবী (রহঃ) এর কওল:
    انه لا ينبغي القنوت في الفجر في حال الحرب و لا غيره … و هذا قول ابي حنيفة و ابي يوسف و محمد رحـ – شرح معاني الآثار – (১/১৮০) –
    অর্থাৎ, ফজরের নামাজে যুদ্ধকালীন সময়ে আবার অন্যান্য সময়েও কুনুত পড়া উচিৎ নয়। এটি ইমাম আবু হানিফা, আবু ইঊসুফ, মুহাম্মদ (রহঃ) – র কওল। – ইমাম তাহাবীর (রহঃ) এই বক্তব্যের অর্থ হল সাধারণ যুদ্ধকালীন অবস্থায় কুনুতে নাজেলা পড়া উচিৎ নয়। আর যদি প্রচন্ড যুদ্ধ হয় যার কারণে মুসলমান ব্যাপক ভাবে পেরেশান গ্রস্থ হয়ে যায়, ছোট ছোট শিশু বাচ্চা- বয়োবৃদ্ধ মানুষ ব্যাপকভাবে প্রাণ হারাতে থাকে, তখন কুনুত পড়া যাবে। তাই তো ইমাম তাহাবী (রহঃ) বলেন:
    و قال الحافظ ابو جعفر الطحاوي رحـ انما لا يقنت عندنا في صلوة الفجر من غير بلية فان وقعت فتنة أو بلية فلا بأس به – رد المحتار – (২/৪৪৯)
    অর্থাৎ, বিপদ গ্রস্থ হলে কুনুত পড়াতে কোন অসুবিধা নেই। ইমাম তাহাবীর পূর্বের কথা – لا ينبغي القنوت – আর এই কথা – فلا بأس – এর মাঝে উল্লিখিত পদ্ধতিতেই সমন্বয় সাধন করেছেন।
    • Informative Informative x 2
  4. Zahir
    Offline

    Zahir Kazirhut Elite Member Staff Member Global Moderator Admin

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    14,591
    Likes Received:
    4,498
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    353
    মুহাক্কিক উলামায়ে কিরাম। (অন্যথায় প্রশ্ন থেকে যাবে)। তাহাবী শরীফের ব্যাখ্যাগ্রন্থ আমানিউল আহবারে এদিকেই ইঙ্গিত করা হয়েছে:
    و قد تقدم الجمع بين ما اثبته المصنف و ما بين ما ذكروه عن المصنف رحـ من ثبوت القنوت في النازلة بانه لا يشرع لمطلق الحرب و انما يشرح لبلية شديدة كما ذكره ابن قدامة ايضاً في المغني عن الامامين الهمامين ابي حنيفة و احمد و الثوري – اماني الاحباء – (৪/৫৯)
    যুগ শ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস আল্লামা কাশমিরী (রহঃ) বলেন:
    و تكلم اطحاوي في قنوت النازلة و يتوهم النسخ من عبارته فيتركه فان الشيخ العيني نقل عن الطحاوي ما يدل علي انها ثابتة عندنا ايضاً – فيض الباري (২/৩০২)
    অর্থাৎ, ইমাম তাহাবী (রহঃ) কুনুতে নাজেলা সম্পর্কে যে আলোচনা করেছেন তার দ্বারা ধারণা হতে পারে যে কুনুতে নাজেলা রহিত হয়ে গেছে, কিন্তু আল্লামা আইনী তাহাবী (রহঃ) থেকে যা বর্ণনা করেছেন তার দ্বারা প্রমাণিত যে, কুনুতে নাজেলা রয়েছে, রহিত হয়নি। এটাই আমাদের মাযহাব। – ফয়জুল বারী (২/৩০২)
    এলাউস সুনানে রয়েছে:
    و وفق شيخنا بين رواية الطحاوي عن ائمتنا اولاً و بين ما حكي عنه شارح المنية ثانياً بأن القنوت في الفجر لا يشرع لمطلق الحرب عندنا – و انما يشرع لبلية شديدة تبلغ بها القلوب الحناجر – والله اعلم و لو لا ذالك للزم الصحابة القائلين بالقنوت للنازلة أن يقنتوا ابداً و لا يتركوه يوماً- لعدم خلو المسلمين عن نازلة ما غالبا لا سيما في زمن الخلفاء الاربعة – و في حاشيته – يؤيد ذالك ما في المغني لابن قدامة قال الأثرم: سمعت ابا عبد الله سئل عن القنوت في الفجر فقال: اذا نزل بالمسلمين نازلة قنت الامام و أمن من خلفه – ثم قال مثل ما نزل بالمسلمين من هذا الكافر بابك – فهذا التمثيل يفيد أي القنوت عنده ليس لكل بلية بل لنازلة شديدة – اعلاء السنن (৬/৯৬)
    অর্থাৎ, সাধারণ যুদ্ধের সময় কুনুতে নাজেলা পড়া যাবে না। প্রচন্ড যুদ্ধের সময় পড়া যাবে। মুগনীতে ইমাম আহমদ দৃষ্টান্ত দিয়ে বলেছেন এই বাবেক কাফেরের সাথে যেই যুদ্ধ হচ্ছে, এমন যুদ্ধে কুনুত পড়া যাবে। সুতারং ইমাম তাহাবী কতৃক বর্নীত মাযহাব ও তার ফাতওয়ার মাঝে কোন বৈপরিত্ত নেই।
    আর যেই সমস্ত সাহাবীদের থেকে বর্ণীত রয়েছে যে তারা কুনুত পড়েন নাই, তাতে কোন দোষ নেই, কারণ এমন পড়াটা ফরয বা আবশ্যক নয় যে সবাই পড়তে হবে। তাই তাদের না পড়াটা দলী হতে পারে না যে কুনুতে নাজেলা পড়া যাবে না বা অবৈধ। যেমন ইবনে মাসঊদ (রাঃ) বিতির ব্যতিত অন্য কোন নামাজে কুনুত পড়েন নাই। ইবনে জবায়ের ফজরের নামাজে কুনুত পড়েন নাই, সিরিয়ায় হযরত আবু দারদা (রাঃ) কুনুত পড়েন নাই, অবরুদ্ধ অবস্থায় হযরত উসমান (রাঃ) কুনুতে নাজেলা পড়ে নাই, এমনি ভাবে হযরত হুসাইন (রাঃ) ও কুনুত পড়েন নাই, কিন্তু এটা যে পড়া অবৈধ তা তো তারা কোথাও বলেননি। সুতরাং এগুলো দিয়ে অবৈধ হওয়ার ব্যাপারে দলীল দেয়া যাবে না। কেননা আরো অনেক সাহাবী তো পড়েছেন, যাদের কথা পূর্বেই আলোচনা করা হয়েছে।
    মোট কথা আলোচ্য আলোচনার দ্বারা এ কথাই প্রতিয়মান হল যে, কুনুতে নাজেলা পড়ার বৈধতা রহিত হয়নি। তাই আল্লামা নুহ আফেন্দী (রহঃ) দৃঢ়তার সাথে বলেন:
    قال العلامة نوح افندي: هذا علي اطلاقه مسلم في غير النوازل – و اما عند النوازل في القنوت في الفجرفينبغي أي يتابعه عند الكل لان القنوت فيها عند النوازل ليس بمنسوخ علي ما هو التحقيق كما مرّ – منحة الخالق علي البحر الرائق – (২/৭৯)
    অর্থাৎ, নির্ভরযোগ্য কথা হল কুনুতে নাজেলা রহিত হয়নি। – মিনহাতুল খালেক আলাল বাহরির রায়েক – (২/৭৯)।
    উল্লিখিত আলোচনার পর আর কিছু বলার অপেক্ষা রাখে না। এবার আমাদের একটু চিন্তা করে দেখতে হবে যে, যেই কাজটি রাসূল (সঃ) করেছেন, আবু বকর (রাঃ) করেছেন, উমর (রাঃ) করেছেন, আলী (রাঃ) করেছেন, মুআবিয়া (রাঃ) করেছেন, ইবনে আব্বাস (রাঃ) করেছেন, চারো ইমাম যেই কুনুতে নাজেলা বৈধ হওয়ার কথা বলেন- জমহুর উলামায়ে কিরাম যেই কুনুতে নাজেলা পড়েন – তাদেরকে যারা কাফের বলে তাহলে তারা কোন দলের … এটা আর বলার বোধ হয় অপেক্ষা রাখে না। কাফের বলে কোন মুসলমানকে ফাত্ওয়া দেয়া যে কত ভয়ানক ও মারাত্মক, তা হয়ত আমাদের ঐ সব বন্ধুদের জানা নেই। তাই কথায় কথায় অন্যকে কাফের বলতে তারা দ্বিধা করেন না। কুনুতে নাজেলা পড়া না পড়া একটি মুস্তাহাব বিষয়, তার কারণেই তারা কাফের দিতে সাহস করল… অথচ ফিকাহ শাস্ত্রে রয়েছে, যদি কোন মুসলমান এমন একটি কথা বলে ফেলে যার সবগুলো ব্যাখ্যাই বলে যে সে কাফের, কিন্তু কেবল একটি ব্যাখ্যায় বলে সে মুসলমান, তবুও তাকে কাফের বলা যাবে না।
    في الدر المختار: لا يفتي بكفر مسلم امكن حمل كلامه علي محمل حسن أو كان في كفره خلاف و لو كان ذالك رواية ضعيفة .. و في الدر و غيرها: اذا كان في المسئلة و جوه توجب الكفر و احد تمنعه فعلي المفتي الميل لما يمنعه – الدر المختار مع رد المحتار (৬/৩৬৭-৩৬৮)
    এমনি ভাবে জাওয়াহিরুল ফিকাহ ১/১৭ পৃষ্ঠাতেও এই মাসআলা উল্লেখ রয়েছে।
    এমনি ভাবে ধারণা করে কাউকে কাফের বলতে নিষেধ করেছেন আল্লাহ তায়ালা। ইরশাদ হচ্ছে: و لا تقولوا لمن القي عليكم السلام لست مؤمنا- الآية - – অর্থাৎ যে ব্যক্তি তোমাকে সালাম দিবে তাকে (ধারণা করে) বলবে না যে, তুমি মুমিন নও। – সূরা নিসা -৯৩
    রাসূলুল্লাহ (সঃ) ও এ ব্যাপারে বলেছেন,
    عن ابن عمر قال قال رسول الله صلي الله عليه و سلم ايما رجل قال لاخيه كافر فقد باء بها احدهما – (متفق عليه)
    অর্থাৎ, কোন ব্যক্তি যদি তার মুসলমান ভাইকে কাফের বলে তাহলে তাদের দু জনের এক জন এর উপযোগী হবে- অর্থাৎ, যাকে কাফের বলা হল সে যদি কাফের না হয় তাহলে যে বলল সে নিজেই এর ভাগি হবে। -[বুখারী শরীফ (কিতাবুল আদব) ২/৯০১। সহীহ মুসলিম ১/৫৭] সুতরাং আমাদের জবান ও কলমকে এসব বলা ও লেখা থেকে বিরত রাখতে হবে।
    “والله تعالي اعلم”
    ——–
    লিখেছেন- মুফতি হাফিজুদ্দীন সাহেব (দাঃ বাঃ)
    প্রধন মুফতি ও পরিচালক, জামিয়াতুল আস’আদ আল ইসলামিয়া ঢাকা।
    • Informative Informative x 2
  5. captcha
    Offline

    captcha Kazirhut Elite Member Member

    Joined:
    Aug 7, 2012
    Messages:
    2,530
    Likes Received:
    1,141
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    343
    ইদানীং শুনছি কুনুতে নাজেলার কথা। বিস্তারিত জানা ছিল না। একজন প্রসিদ্ধ আলেমের বরাত দিয়ে তথ্যগুলো কাজে লাগবে।
    হাটে শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।
    • Like Like x 1
  6. abdullah
    Offline

    abdullah Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    2,091
    Likes Received:
    860
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    229
    কঠিন বিষয়। কিছুটা উপলব্ধি হল। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।
  7. Zahir
    Offline

    Zahir Kazirhut Elite Member Staff Member Global Moderator Admin

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    14,591
    Likes Received:
    4,498
    Trophy Points:
    112
    Reputation:
    353
    ব্যাপক মুসিবতের সময় কুনুতে নাজেলা পড়া মুস্তাহাব

    মুসলমানদের উপর যদি ব্যাপক বালা-মুসিবত ও বিপদ আসে, তাহলে সেক্ষেত্রে আল্লাহ তাআলার নিকট সাহায্য কামণার্থে কুনুতে নাজেলা পড়া মুস্তাহাব। রাসূল সাঃ বিপদ আপতিত হলে ফজরের নামাযের দ্বিতীয় রাকাতে রুকু থেকে উঠে দাঁড়িয়ে বিভিন্ন সময় কুনুতে নাজেলা পড়েছেন। {সহীহ বুখারী-২/৬৫৫, তাহাবী শরীফ-১/১৭৪, সহীহ মুসলিম-১/২৩৭}
    তাই হানাফী মাযহাব মতে কাফের, মুশরিক ও জালেমদের পক্ষ থেকে বা আসমানী কোন বিপদ আসলে কুনুতে নাজেলা পড়া উচিত। {ফাতওয়ায়ে শামী ২/৪৪৮-৪৪৯}

    কুনুতে নাজেলা পড়ার পদ্ধতি
    ফজরের নামাযের ফরজের দ্বিতীয় রাকাতে রুকু থেকে উঠে ইমাম আওয়াজ করে দু’আ পড়বেন, আর মুসল্লিগণ আস্তে আস্তে আমীন বলবেন। দুআ শেষে নিয়ম মোতাবিক সেজদা, শেষ বৈঠক ইত্যাদির মাধ্যমে নামায শেষ করবেন। (এলাউস সুনান – ৬/৮১)

    কুনুতে নাজেলা
    اللَّهُمَّ اهْدِنَا فِيمَنْ هَدَيْتَ ، وَعَافِنَا فِيمَنْ عَافَيْتَ ، وَتَوَلَّنَا فِيمَنْ تَوَلَّيْتَ ، وَبَارِكْ لَنَا فِيمَا أَعْطَيْتَ ، وَقِنَا شَرَّ مَا قَضَيْتَ ، إِنَّكَ تَقْضِى وَلاَ يُقْضَى عَلَيْكَ ، إِنَّهُ لاَ يَذِلُّ مَنْ وَالَيْتَ تَبَارَكْتَ رَبَّنَا وَتَعَالَيْتَ (سنن البيهقى الكبرى، رقم الحديث-2960)
    اللَّهُمَّ اغْفِرْ لَنَا ، وَلِلْمُؤْمِنِينَ وَالْمُؤْمِنَاتِ وَالْمُسْلِمِينَ وَالْمُسْلِمَاتِ ، وَأَلِّفْ بَيْنَ قُلُوبِهِمْ ، وَأَصْلِحْ ذَاتَ بَيْنِهِمْ ، وَانْصُرْهُمْ عَلَى عَدُوِّكَ وَعَدُوِّهِمْ ، اللَّهُمَّ الْعَنْ كَفَرَةَ أَهْلِ الْكِتَابِ الَّذِينَ يَصُدُّونَ عَنْ سَبِيلِكَ ، وَيُكُذِّبُونَ رُسُلَكَ ، وَيُقَاتِلُونَ أَوْلِيَاءَكَ اللَّهُمَّ خَالِفْ بَيْنَ كَلِمَتِهِمَ ، وَزَلْزِلْ أَقْدَامَهُمْ ، وَأَنْزِلْ بِهِمْ بَأْسَكَ الَّذِى لاَ تَرُدُّهُ عَنِ الْقَوْمِ الْمُجْرِمِينَ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَنِ الرَّحِيمِ اللَّهُمَّ إِنَّا نَسْتَعِينُكَ وَنَسْتَغْفِرُكَ وَنُثْنِى عَلَيْكَ وَلاَ نَكْفُرُكَ ، وَنَخْلَعُ وَنَتْرُكُ مَنْ يَفْجُرُكَ بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَنِ الرَّحِيمِ اللَّهُمَّ إِيَّاكَ نَعْبُدُ ، وَلَكَ نُصَلِّى وَنَسْجُدُ ، وَلَكَ نَسْعَى وَنَحْفِدُ ، نَخْشَى عَذَابَكَ الْجَدَّ ، وَنَرْجُو رَحْمَتَكَ ، إِنَّ عَذَابَكَ بِالْكَافِرِينَ مُلْحَقٌ. (سنن البيهقى الكبرى، رقم الحديث-2962)

    -সংকলক
    মুফতী হাফীজুদ্দীন (দাঃ বাঃ)
    প্রধান মুফতী ও পরিচালক
    জামিয়াতুল আস’আদ আলইসলামিয়া ঢাকা
  8. mizansharif
    Offline

    mizansharif Welknown Member Member

    Joined:
    Sep 19, 2012
    Messages:
    1,076
    Likes Received:
    349
    Trophy Points:
    82
    Reputation:
    66
    মহান আল্লাহতায়ালা আমাদেরকে আমাল করার তাওফীক দান করুন।আমিন।

Remote Image Uploads

Pls Share This Page:

Users Viewing Thread (Users: 0, Guests: 0)